”নন্দীগ্রামে আমিই জিতছি”, ফের বললেন মমতা

”নন্দীগ্রামে আমিই জিতছি”, ফের বললেন মমতা

বৃহস্পতিবার বহুপ্রতীক্ষিত নন্দীগ্রামে ভোট শেষ হতেই উত্তরে পারি দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন কোচবিহার ও আলিপুরদুয়ারের দিনহাটা, নাটাবাড়ি ও ফালাকাটায় প্রচার সারলেন মমতা। নন্দীগ্রামে ভোটের ব্যাপারে এদিন তিনি বলেন, ”দু’দফায় ৬০টি কেন্দ্রে ভোট হয়েছে। এর মধ্যে ৫০টিতে আমিই জিতছি।’’ বাংলাদেশে মতুয়াতীর্থে মোদীর যাওয়া নিয়ে তিনি বলেন, ‘‘মতুয়াদের কেউ চিনত না। আমি ওঁদের বড় মাকে নিয়ে হাসপাতালে গিয়েছি। নিজের টাকায় চিকিৎসা করিয়েছি। নিজের টাকায় ওদের জন্য কাজ করেছি। আমি ওদের বাড়িতে বার বার গিয়েছি। উন্নয়ণ করে দিয়েছি। হরিচাঁদ, গুরচাঁদ ঠাকুরের নামে বিশ্ববিদ্যালয় করেছি। কলেজ করেছি। ওদের জন্য রাস্তা করে দিয়েছি। রেলস্টেশন করেছি। স্টেডিয়াম করে দিয়েছি ওদের। এখন মোদী বাংলাদেশে গিয়ে বলছেন ভোট দাও। আমি তো ওদের জন্য সব করে দিয়েছি। কই আগে তো ওদের কথা মনে হয়নি মোদীর। বাংলাদেশে তো লোকনাথ বাবারও মন্দির আছে। অনুকূল ঠাকুরের মন্দির আছে। কই মোদী সেখানে তো গেলেন না। মতুয়াদের ওই মন্দিরে আগে কেন যাননি মোদী! কোচবিহারে রাজবংশীদের কি না করেছি। তাদের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় করে দিয়েছি। রাজবংশী ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড কালচারাল বোর্ড তৈরি হয়েছে। রাজবংশী আবাস যোজনায় বাড়ি তৈরি করে দিয়েছি। রাজবংশী ৫০০ জন সঙ্গীতকারকে বাদ্যযন্ত্র দিয়েছি তাদের লোক গানের চর্চার জন্য। কোচবিহারের মানুষের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল রাজবংশী ভাষাকে স্বীকৃতি দিতে হবে আমি দিয়েছি তো? পঞ্চানন বর্মার জন্মদিনে ছুটি দিয়েছি। আপনাদের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল পঞ্চানন বর্মার নামে বিশ্ববিদ্যালয়, জিতেন্দ্র নারায়ণের নামে মেডিক্যাল কলেজ, নতুন এয়ারপোর্ট, ছিটমহল, জয়ী সেতু। সব করে দিয়েছি। কোনটা করিনি বলুন। এমনকি আপনাদের দাবি ছিল একটা নারায়ণি সেনা তৈরি করার, সেটাও পশ্চিমবঙ্গ পুলিশ থেকে তৈরি করে দিয়েছি। আপনাদের সম্মানের জন্য। যার সদর দফতর কোচবিহারে। সব ধর্ম, সব বর্ণ, সব জাতি, সব ভাষার জন্য কাজ করি আমি। উদয়ন গুহকে ভোট দিন। ওর বিরুদ্ধে যে দাঁড়িয়েছে তাকে তো চেনেন আপনারা। ওকে যদি জেতান তাহলে ও কি করবে জানেন তো। গুণ্ডমি করে বেড়াবে।” এরপর তিনি বলেন, ”রাজবংশীদের জন্য ৭০ লক্ষ টাকা দিয়ে একটি অ্যাকাডেমিক বিল্ডিং তৈরি করে দিচ্ছি।” রাজ্য সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পের উল্লেখ করে তিনি জানান, ”আপনাদের জন্য অনেক করেছি। কন্যাশ্রী, রূপশ্রী, স্বাস্থ্যসাথী, দুয়ারে সরকার, বিনাপয়সায় রেশন, বিনামূল্যে চিকিৎসা, তফশিলী বন্ধুদের পেনশন, বিধবাদের ভাতা। তারজন্য তৃণমূলের প্রার্থীদের জেতাতে হবে।” কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়ে মমতার বক্তব্য,” ভোটের জন্য চুপ করে আছি। আমি সিআরপিএফ, বিএসএফকে সম্মান করি। কিন্তু ওরা তাণ্ডব করেছে। ওদের আমার অনুরোধ বিজেপির কথায় অত্যাচার করা বন্ধ করুন। নন্দীগ্রামে আমার নেতাদের বাড়িতে ঢুকে তাণ্ডব করেছে। মনে রাখবেন, ওরা যদি তাণ্ডব করবেন। তা হলে আপনারাও জবাব দেবেন প্রতিবাদ করবেন। মারধর নয়। উলুধ্বনি দিয়ে প্রতিবাদ করবেন। আজান দিয়ে প্রতিবাদ করবেন।” এরপর বিজেপির নাম না নিয়ে মমতা বলেন, ”ওরা কোটি কোটি টাকা নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে। কাউকে দেয় না। কেউ মরে গেলে, কারও দরকার হলে দেয় না, ওই টাকা ভোটের সময় খরচ করে। ভোট পাওয়ার জন্য, লোক কেনার জন্য খরচ করে।”

দেশ মহানগর রাজনীতি রাজ্য